Uncategorized

।।১৫ শতাংশ ভ্যাট হলেও জিনিসপত্রের দাম বাড়বেনা:অর্থমন্ত্রী।। 

।।১৫ শতাংশ ভ্যাট হলেও জিনিসপত্রের দাম বাড়বেনা: অর্থমন্ত্রী।।

————————————————–
      ।। দিঘলিয়া ওয়েব ব্লগ রিপোর্ট।।
০৩ জুন, ২০১৭ ইং শনিবার ১১:০০ মিঃ

—————————————————

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, ১৫ শতাংশ ভ্যাট কার্যকর করা হলেও পণ্যের বাজারে তার কোনো প্রভাব পড়বে না। জিনিসপত্রের দাম বাড়বে না। কারণ অনেক পণ্যে ভ্যাট ছাড় দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরের বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, পরিকল্পনামন্ত্রী আ.হ.ম মোস্তফা কামাল, অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, বাংলাদেশ ব্যাংক গর্ভনর ড. ফজলে কবির, এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান, অর্থসচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন, ইআরডি সচিব মো. শফিকুল আজম, পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মো. জিয়াউল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, এবারের বাজেটের সব জায়গাই উজ্জ্বল। বাজেটের কোথাও কোনো দুর্বলতা নেই। সঞ্চয়পত্রের সুদের হার বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেছেন, আগামী দুই মাসের মধ্যে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার পর্যালোচনা করা হবে। সঞ্চয়পত্রের সুদের হার প্রতি বছর একবার পর্যালোচনা করা উচিত বলে তিনি মনে করেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ব্যাংকে সুদের হার ৭ শতাংশ, আর সঞ্চয়পত্রে সুদের হার ১১ শতাংশ। এটি অসম্ভব। এত পার্থক্য থাকা উচিত নয়।

আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ব্যাংক অ্যাকাউন্টে আবগারি শুল্ক বাড়ানোর কারণ সম্পর্কে তিনি বলেন, ব্যাংক অ্যাকাউন্টে যাদের এক লাখ টাকার উপরে আছে তাদের উপর এই কর বসছে। আমি মনে করি এটা যৌক্তিক। কারণ ব্যাংক অ্যাকাউন্টে যাদের লাখ টাকার উপরে আছে তারা এই কর দিতে সক্ষম। মূলত বড়লোক বা ধনীদের কাছ থেকে কর আদায়ের জন্য এই আবগারি শুল্ক দেয়া হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, নতুন বাজেটে বৈদেশিক সাহায্যের পরিমাণ গত বছরের তুলনায় বেশি রাখা হয়েছে। পাইপ লাইনেও অনেক বেশি টাকা আছে। আমরা এই টাকার সদ্ব্যবহার করতে পারি না। সম্পূর্ণ টাকা ব্যবহার করতে পারছি না। এরপরেও বিদেশি সাহায্যের পরিমাণ বেশি রেখেছি। কারণ, এর মধ্যদিয়েই এই টাকা ব্যবহারের সক্ষমতা আমরা অর্জন করবো।

এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের ভ্যাট বাড়লে শিক্ষাক্ষেত্রে বৈষম্য হবে না।

অর্থমন্ত্রী বলেন, রেমিট্যান্স আগের তুলনায় কমেছে এটা সত্য। তবে বড় ধরনের কম এখানে দেখছি না। তিনি বলেন, আমাদের বিশ্বাস রেমিট্যান্স কমেনি, তবে ব্যাংকিং চ্যানেলের বাইরে মাধ্যমে বেশি রেমিট্যান্স আসছে। তাই ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স বাড়াতে সরকার ইতোমধ্যে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য রেমিট্যান্সের ব্যাংক ফিতে ভর্তুকি দেবে সরকার। বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশিদের আয়ের অর্থ দেশে পাঠাতে বর্তমানে ব্যাংক ফি কাটা হয়। ওই খরচে ভর্তুকি দেয়া হবে।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s